Wednesday, May 20মাদার টিভি
Shadow

নওগাঁর বদলগাছী উপজেলা চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর বদলগাছী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল আলম খাঁনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সোমবার ৪৬.০০.০০০০.০৪৬.২৬.৪৮৮.২০২০-৪২৮ নং স্মারকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা-১ শাখা এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

উপ-সচিব নুমেরী জামান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, যেহেতু জনাব মোঃ শামসুল আলম খাঁন, চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ, বদলগাছী নওগাঁ এর বিরুদ্ধে চার্জশিটভুক্ত আসামী হওয়া সংক্রান্ত এবং অন্যান্য বিভিন্ন অপরাধ বিষয়ে জনাব ডি. এম. এনামুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও যুদ্ধকালীন কমা-ার, বদলগাছী, নওগাঁ গত ১৪ মে ২০২০ইং তারিখে জেলা প্রশাসক নওগাঁর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করেন এবং যেহেতু এ বিষয়ে বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ কতৃর্ক জেলা প্রশাসক, নওগাঁর নিকট ১৫ মে ২০২০ তারিখে প্রেরিত প্রতিবেদন অনুযায়ী শামসুল আলম খাঁনের বিরুদ্ধে বদলগাছী থানার জিআর ২/১১(বদল), তারিখ ০৩ জানুয়ারি ২০১১ নং মামলা রয়েছে এবং যা নওগাঁ বিজ্ঞ দায়রা জজ, ২য় আদালতে বিচারাধীন (মামলা নং ৪২৮/১১ দায়রা) এবং তিনি উক্ত মামলার ৩নং আসামী এবং যেহেতু তার এ পদে বহাল থেকে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করা রাষ্ট্র বা পরিষদের স্বার্থের হানিকর সেহেতু সরকার জনস্বার্থে তাকে স্বীয় পদে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।

এমতাবস্থায় উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮ [ উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১] এর ১৩ (খ) ধারা অনুযায়ী নওগাঁ জেলার জনাব মোঃ শামসুল আলম খাঁন, চেয়ারম্যান পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হল এবং বদলগাছী উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান-১ কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হল। গত ১৪ মে উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল আলম খাঁন ইউএনওর বিরুদ্ধে নীতিমালা অনুসরণ না করে টে-ার ছাড়াই কৃষি দ্বিতল ভবন ভাঙ্গা, দুযোর্গ মোকাবেলা তহবিল থেকে ত্রাণ বিতরণের নামে পাঁচ লাখ টাকা তুলে এককভাবে ব্যয় করা এবং কৃষকের উপস্থিতি ছাড়াই চেয়ারম্যানের সঙ্গে পরামর্শ না করে খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহে কৃষক নির্বাচনে লটারী করা হয় মর্মে সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান স্থানীয় সাংসদ ছলিম উদ্দিন তরফদার, ইউএনও মুহা. আবু তাহির ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে যোগসাজসের অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনের মাত্র চার দিন পর উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল আলম খাঁন সাময়িক বরখাস্ত হলেন এবং মঙ্গলবার ভাইস-চেয়ারম্যান ইমামুল আল হাসান তিতু দায়িত্ব গ্রহণ করেন। মঙ্গলবার উপজেলা চেয়ারম্যানের রুমে তাকে অফিস করতে দেখা যায়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, সংবাদ সম্মেলনে টে-ার ছাড়াই কীভাবে ইউএনও ভবন ভাঙ্গলেন তার কোনো সুরাহা হলো না। অথচ ২০১১ সালের ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যানকে বরখাস্ত করা হলো। বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে নানা জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।

শামসুল আলম খান বলেন, লোকমুখে শুনেছি আমি সাময়িক বরখাস্ত হয়েছি। এ সংক্রান্ত কোনো চিঠি হাতে পাইনি। যে অভিযোগে আমাকে বরখাস্ত করা হয়েছে তা ২০১১ সালের ঘটনা। ঐ অভিযোগে যদি আমাকে বরখাস্ত করা হয় তাহলে ২০১৯ সালে ভোট করতে দেওয়া হলো কীভাবে। আমার প্রার্থীতা বাতিল হলো না কেন। তিনি আরো বলেন, ইউএনও নীতিমালা অনুসরণ না করে টে-ার ছাড়াই দ্বিতল ভবন ভেঙে ফেলেছে ফলে ১০/১২ লাখ টাকা রাজস্ব আয় থেকে সরকার বঞ্চিত হয়েছে। এসব নিয়ে কথা বলায় আমাকে হয়রানী করার জন্য চক্রান্তমূলকভাবে আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করছেন।

ভাইস-চেয়ারম্যান ইমামুল আল হাসান তিতু জানান, ডিসি অফিস থেকে ফোন করে দায়িত্ব গ্রহণ করার জন্য আমাকে বলা হয়েছে। কিন্তু দায়িত্ব হস্তান্তর সংক্রান্ত কোনো চিঠি আমি পাইনি।

ইউএনও মুহা. আবু তাহিরের কাছে এ বিষয়ে গনমাধ্যম কর্মী জানতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Leave a Reply